পাকিস্তানে মার্কিন কোনো সামরিক উপস্থিতি বা বিমানঘাঁটি নেই

img

নূরবিডি ডটকম নিউজ : ইন্দো প্যাসিফিক সম্পর্ক বিষয়ক যুক্তরাষ্ট্রের অ্যাসিসট্যান্ট সেক্রেটারি অব ডিফেন্স ডেভিড এফ হেলভি’র বক্তব্যের জবাবে পাকিস্তান বলেছে, পাকিস্তানে যুক্তরাষ্ট্রের কোনো সামরিক উপস্থিতি বা তাদের কোনো বিমানঘাঁটির উপস্থিতি নেই। এ নিয়ে কোনো জল্পনা থাকলে তাকে ভিত্তিহীন এবং দায়িত্বজ্ঞানহীন বলে আখ্যায়িত করেছে পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। একই সঙ্গে এমন খবরকে এড়িয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। এ খবর দিয়েছে অনলাইন ডন। উল্লেখ্য, গত সপ্তাহে ডেভিড এফ হেলভি যুক্তরাষ্ট্রের সিনেট আর্মড সার্ভিসেস কমিটিতে বলেছেন, পাকিস্তানের এয়ারস্পেস বা বিমান ব্যবস্থাপনা এবং ভূমি ব্যবহারের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনীকে অনুমোদন দিয়েছে পাকিস্তান, যাতে আফগানিস্তানে মার্কিন উপস্থিতিতে তারা সহায়তা করতে পারে।

এ নিয়ে পাকিস্তানের সঙ্গে অব্যাহতভাবে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। কারণ, আফগানিস্তানে শান্তি পুনঃপ্রতিষ্ঠায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা আছে পাকিস্তানের। মার্কিন কর্মকর্তার এমন বক্তব্যের জবাবে সোমবার দিবাগত রাতে একটি বিবৃতি দিয়েছেন পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র জাহিদ হাফিজ চৌধুরী। এতে তিনি পাকিস্তানের ওই অবস্থান ব্যক্ত করেন।
তিনি আরো জানান, ২০০১ সাল থেকে এয়ারলাইন্স অব কমিউনিকেশন (এএলওসি) এবং গ্রাউন্ড লাইন্স অব কমিউনিকেশনের (জিএলওসি) মাধ্যমে সহযোগিতার ফ্রেমওয়ার্কে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে যুক্ত পাকিস্তান। এরপর আর কোনো চুক্তি হয়নি দুই দেশের মধ্যে।

উল্লেখ্য, সিনেটের শুনানিতে ডেভিড এফ হেলভিকে ওয়েস্ট ভার্জিনিয়ার ডেমোক্রেট দলের সিনেটর জো ম্যানচিন প্রশ্ন করেন। পাকিস্তানের এই অবস্থান সম্পর্কে এবং বিশেষ করে পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থা, ভবিষ্যতে তাদের ভূমিকা সম্পর্কে তিনি যে প্রত্যাশার কথা বলছেন- সে সম্পর্কে ডেভিড এল হেলভির কাছে জানতে চান ম্যানচিন। জবাবে হেলভি বলেন, আফগানিস্তানে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে পাকিস্তান। তারা আফগানিস্তানে শান্তি প্রক্রিয়াকে সমর্থন করে। পাকিস্তান আমাদেরকে তাদের আকাশসীমা ব্যবহার এবং আফগানিস্তানে আমাদের সামরিক উপস্থিতিতে সমর্থন দিতে রাজি হয়েছে। এ নিয়ে পাকিস্তানের সঙ্গে আমরা অব্যাহতভাবে আলোচনা চালিয়ে যাবো, যাতে ভবিষ্যত আফগানিস্তান, ও সেখানে শান্তিতে তাদের সমর্থন ও অংশগ্রহণ পাই। এ বিষয়টি অনেক গুরুত্বপূর্ণ। ওদিকে কূটনৈতিক সূত্রগুলো ডনকে বলেছেন, পাকিস্তান সব সময়ই যুক্তরাষ্ট্রকে ওভারফ্লাইটস এবং স্থল সুবিধা দিতে সম্মত হয়েছে, যাতে মার্কিন সেনাদের আফগানিস্তানে উপস্থিতি নিশ্চিত হয় এবং এই সহযোগিতা তারা অব্যাহত রাখবে।

সূত্র : মানবজমিন