মুফতি রিজওয়ান রফিকীর মুক্তি দাবী করেছেন আতাউল্লাহ হাফিজ্জি

img

ভ্রান্ত আক্বীদাপন্থীদের প্রতিবাদে সরব তরুণ আলেম মুফতি রিজওয়ান রফিকীকে ডিবি পরিচয়ে তার মাদরাসা হতে উঠিয়ে নেয়ায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলন প্রধান আমীরে শরীয়ত আল্লামা আতাউল্লাহ হাফেজ্জী। গত কয়েকদিনে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে কয়েকজন আলেমকে কারণ দর্শানো ব্যতিত আকস্মিকভাবে তুলে নেয়া হয়েছে। যার ফলে গোটা আলেমসমাজ ক্ষুব্ধ ও মর্মাহত। স্বাধীন-সার্বভৌম মুসলিম দেশে ইসলামিক স্কলার, ইমাম-খতীব ও ওলামায়ে কেরামকে উদ্দেশ্যমূলক হয়রানী কিছুতেই মেনে নেয়া যায় না। এভাবে চলতে থাকলে ইসলামপ্রিয় তৌহিদী জনতা আবারো রাজপথে নামতে বাধ্য হবে। তিনি বলেন, অবিলম্বে মুফতি রিজওয়ান রফিকীসহ গুম হওয়া সকল আলেমদেরকে মুক্তি দিতে হবে। আলেমদেরকে হয়রানীর পরিণতি শুভ হবে না।

১২অক্টোবর শনিবার বিকালে কামরাঙ্গীরচরস্থ জামিয়া নূরিয়া মাদরাসায় ঢাকার বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আগত ওলামায়ে কেরামের সাথে মতবিনিময়কালে তিনি এসব কথা বলেন। এসময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, মাওলানা মুজিবুর রহমান হামিদী, মাওলানা সানাউল্লাহ, মুফতি আব্দুল্লাহ ইয়াহইয়া, মুফতি সুলতান মহিউদ্দীন, মুফতি ইলিয়াছ মাদারীপুরী, মুফতি আ ফ ম আকরাম হুসাইন, মুফতি যুবায়ের গণী, মুফতি শামীম আল আরকাম, মাওলানা আতাউর রহমান আতিকী, মুফতি শাব্বীর মাজহারী, মুফতি আব্দুল্লাহ ইদরীস প্রমুখ।

মতবিনিময় সভায় ওলামায়ে কেরাম বলেন, সরকারের কালো তালিকাভূক্ত সংগঠন ‘হেজবুত তাওহীদ’ অব্যাহতভাবে ইসলাম, মুসলমান ও ওলামায়ে কেরামের নামে বিষোদগার করে চলছে। ইসলামের মনগড়া ব্যাখ্যা দিয়ে দেশে বিশৃঙ্খল পরিবেশ সৃষ্টির চক্রান্ত আঁকছে। সরকারকে এখনই ‘হেজবুত তাওহীদ’ নিষিদ্ধ করে তাদের সকল কার্যক্রম বন্ধ করতে হবে। অন্যথায় ধর্মপ্রাণ জনতা তাদের ঈমান হেফাজতে গর্জে উঠবে।